Skip to main content

Posts

Showing posts from 2020

Passport Shipped বলতে কি বুঝায়?

Passport Shipped বলতে কি বুঝায়?  অনেকেই প্রশ্ন করেন বিভিন্ন গ্রুপে যে Passport Shipped বলতে কি বুঝায়। আজকে তারই উত্তর দিব।  আপনার পাসপোর্ট সকল প্রক্রিয়া শেষে আপনার ই-পাসপোর্ট কি প্রিন্ট করা হয় উত্তরা দিয়াবাড়ি ই-পাসপোর্ট ভবনে । প্রিন্ট হয়ে গেলে পাসপোর্ট কি আগারগাও পাঠিয়ে দেয়া হয় ডাকবিভাগের সহায়তায়। কিংবা যার পাসপোর্ট যেই অফিস থেকে করা হয়েছে সেখানে পৌছে দেয়া হয়। এটাকেই উনারা Passport Shipped বলে থাকেন। অর্থাৎ পাসপোর্ট টি পৌছে দেয়া হয়েছে অফিসে। এবার আপনি সংগ্রহ করতে পারবেন সেই অফিস থেকে।  ধন্যবাদ। 

শুধুমাত্র একটি নাম হলে কিভাবে পাসপোর্ট করব?

ই-পাসপোর্ট এর মত গুরুত্বপূর্ণ বইটি হাতে পেতে অনেকের ই নানান সমস্যা হয়৷ অনেকের মনে নানান প্রশ্ন থাকে। আজকে তারই ধারাবাহিকতায় আরেকটি প্রশ্নের উত্তর করছি। এই ওয়েবসাইটে  তারই ধারাবাহিকতায় আজ এই প্রশ্নের উত্তর করছি।  শুধুমাত্র একটি শব্দের নাম হলে কিভাবে ই-পাসপোর্ট  করব?  ধরুন আপনার নাম হল শুধুমাত্র Shahriar. আপনাদের অনেকের ই ধারণা ই-পাসপোর্ট এর নাম দুই শব্দের ই হতে হবে। আসলে ব্যাপারটা এমন নয়।  আপনার নাম যদি দুই শব্দের নাম হয়, তাহলে একটি শব্দ আপনার Given Name, অন্যটি আপনার Surname.  প্রত্যেকটা মানুষের ই Given Name থাকবে। কিন্তু সবার Surname নাও থাকতে পারে।  অতএব আপনার যদি Surname না থাকে, তাহলে আপনি শুধু Given Name এর ঘরে আপনার নাম লিখবেন। অন্যঘর খালি রাখবেন।  অর্থাৎআপনার নাম একটি হলে শুধুমাত্র Given Name পুরণ করবেন৷  ব্লগটি ফলো করে সাথে থাকার জন্য অনুরোধ রইল৷ ধন্যবাদ।   

বাবা মা মৃত হলে নামের সঙ্গে তা কি উল্লেখ করব?

  বাবা অথবা মা কিংবা উভয়েই মৃত হলে, ই-পাসপোর্টের Parental Information এ কি Late লিখতে হবে?  উত্তরঃ  না, Late লিখতে হবে না৷  বাবা মা মৃত হলে তাদের যা ছিল তাই কি দিব?  উত্তরঃ হ্যা পেশা যা ছিল, তাই দিবেন। অনেকে পেশা Others দিয়ে দেন। তেমন কোনো সমস্যার বিষয় না এটা।  ধন্যবাদ।

৪ শব্দের নাম ই-পাসপোর্টে কিভাবে লিখবেন?

পাসপোর্টে Given Name এবং Surname-এ দুটো করে নাম উল্লেখ করা যাবে কি? আপনি দুটো দুটো করে Given Name আর Surname দিতে পারবেন। অর্থাৎ আপনার নাম ৪ শব্দের হলে দুটো দুটো করে দিবেন৷ এতে কোনো সমস্যা নেই। ই-পাসপোর্ট কিংবা মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট দুটোর ক্ষেত্রেই একই। এ ক্ষেত্রে আপনার মূল নাম ঠিক থাকবে বা থাকতেই হবে এবং কোন পরিবর্তন করা যাবে না। ধরুন আপনার নাম Mohammad Shahriar Salman Khan. এবং আপনার NID কার্ডে এই একই নাম দেয়া (বাধ্যতামূলক ভাবে NID এবং পাসপোর্ট এর নাম মিল থাকতে হবে)। তাহলে আপনার নাম গুলি এভাবে লিখতে পারবেনঃ (Given Name আর Surname এর মাঝে হাইফেন দিয়ে বুঝাচ্ছি) ১) Mohammad - Shahriar Salman Khan 2) Mohammad Shahriar - Salman Khan 3) Mohammad Shahriar Salman - Khan মনে রাখবেন আপনার যদি পুরানো MRP পাসপোর্ট থাকে, তাহলে ই-পাসপোর্টেও MRP এর মত করেই Given Name ও Surname দিবেন।

ই-পাসপোর্টের পেমেন্ট সংক্রান্ত একটি সমস্যা ও তার সমাধান

আমার জানা নেই আর কোন কোন ব্যাংকের ক্ষেত্রে এই সমস্যা হয় নাকি, তবে আমি ঢাকা ব্যাংকের টাই উল্লেখ করছি। বলে রাখি, এটা তেমন বিশাল কোনো সমস্যা না, তাই রেগে যাবেন না। সবার সাথে বিনয়ের সহিত ব্যবহার করবেন। আপনার সমস্যা সমাধানের চেষ্টায় আমরা সর্বদা এগিয়ে।  বেশ কিছুদিন আগে আমি ঢাকা ব্যাংকে ই-পাসপোর্টের টাকা জমা দিয়েছিলাম। গল্প টা শুনুন, বুঝুন, এরপর নিশ্চিত আপনার ভালো লাগবে। টাকা জমা দেয়ার পর ব্যাংক আমাকে এমন একটা রসিদ দিল। নিচে আমি দিচ্ছি রসিদ টা। নিরাপত্তার জন্য রসিদ টির বিভিন্ন অংশ আমি মুছে দিয়েছি। রসিদ টি একটু দেখে আবার আমার লিখা পড়তে শুরু করুন।  বলে নেই, অনেকদিন আগেই এই লিখাটি উপস্থাপন করার ইচ্ছে ছিল, কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে সময় করে উঠতে পারি নি। চলুন রসিদ টি দেখা যাক!!  আমি আশা করছি আপনারা দেখেই ফেলেছেন রসিদ টি। কিন্তু এটাও সত্য কিছুই বুঝলেন না। এবার বলি রসিদ টি আবার দেখুন। এবং উপরে যে tctcfe1023 এমন লিখা এটা লক্ষ করুন। এই নম্বর কি হচ্ছে আপনার রসিদ নম্বর যা ই-পাসপোর্ট এর সার্ভারে যখন আপলোড করা হয়, তখন আপনার পেমেন্ট ভেরিফাইড হয়। আর পেমেন্ট ভেরিফায় হলেই আপনার পাসপোর্ট এর অন্যান্য যাচাই বা

ই-পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে ফর্ম পুরণ করার আগে কি ব্যাংকে টাকা জমা দিতে হবে?

ই-পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে ফর্ম পুরণ করার আগে কি ব্যাংকে টাকা জমা দিতে হবে? ই-পাসপোর্ট নিয়ে সবার অনেক প্রশ্ন। তার ই উত্তর দিতে আমাদের এই ওয়েবসাইট। এই আনওফিসিয়াল ওয়েবসাইট টি সর্বদা আপনাদের কে ৯০ ভাগ সঠিক তথ্য প্রদান করবে এই নিশ্চয়তা দিচ্ছি ইনশাআল্লাহ৷ চলুন শুরু করা যাক।  প্রথমত এখনো ই-পাসপোর্ট পুরোপুরি ভাবে চালু না হওয়ায় এতে নানা মুখি সমস্যা বিদ্যমান রয়েছে। তাছাড়া একটি এত বড় প্রজেক্ট চালু হলে নতুন নতুন বহুমুখী সমস্যা দেখা দিবে এটাই স্বাভাবিক৷ সুনাগরিক হিসেবে আপনাদের দায়িত্ব এই অসুবিধা মেনে নেয়া এবং সহযোগিতা করা৷ আপনাদের যেকোনো সমস্যার জন্য যোগাযোগ করুন contact@epassport.gov.bd এই ঠিকানায়৷ সঠিক ভাবে বিষয় (Email Subject) উল্লেখ করে, বিস্তারিত তথ্য দিয়ে (email body) আপনার ই-মেইল টি করুন। আপনাদের সহযোগীতা করার জন্য ই-পাসপোর্ট সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে৷ আপনারাও সহযোগিতা করুন। যেহেতু এখনো স্বল্প পরিসরে ই-পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে এবং অসংখ্য আবেদন হয়েছে, এই কারণে হয়ত আপনাদের সমস্যা সমাধানে একটু সময় লাগতে পারে৷  আপনার সমস্যা কিভাবে ই-পাসপোর্টের নিকট ই-মেইল করবেন?  ই-পাসপোর্ট আবেদনের জন্য প

Epassport offline pdf form কিভাবে জমা দিব? ই-পাসপোর্টের অফলাইন পিডিএফ ফর্ম জমা দেয়ার উপায় কি? passport pdf file

Epassport offline pdf form কিভাবে জমা দিব? ই-পাসপোর্টের অফলাইন পিডিএফ ফর্ম জমা দেয়ার উপায় কি?     ই-পাসপোর্টের অফলাইন আবেদন ফর্ম আমাদের এই ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে ই-পাসপোর্ট কর্তৃপক্ষ সকলের জন্য এই e-passport offline pdf form সকলের জন্য উন্মুক্ত করেছে।     তবে ই-পাসপোর্টের অ্যাপ্লিকেশনগুলি অনলাইনেও জমা দেওয়া যাবে এবং আপনাকে ই-পাসপোর্ট অফিসে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অ্যাপয়েন্টমেন্টের সময়সূচী বেছে নিতে হবে। ই-পাসপোর্ট এর অফলাইন পিডিএফ ফর্ম passport pdf file সকলের জন্য উন্মুক্ত হয়েছে, আপনারা এখানে passport pdf file ফর্ম টি পাবেন। লিংকে ক্লিক করলে আমাদের ওয়েবসাইটের আরেকটি পেইজে নিয়ে যাবে। সেখান থেকে আপনি পিডিএফ ফর্ম টি ডাউনলোড করতে পারবেন।   ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য।   

E-passport pdf form download link খুজছেন? আপনার কি ই-পাসপোর্টের পিডিএফ ফর্ম প্রয়োজন?

E-passport pdf form download link খুজছেন? আপনার কি ই-পাসপোর্টের পিডিএফ ফর্ম প্রয়োজন?     ই-পাসপোর্টের পিডিএফ ফর্ম টি ই-পাসপোর্টের অফলাইন ফর্ম। অনেকে ইন্টারনেটে ই-পাসপোর্টের পিডিএফ ফর্ম খুজছেন। E-passport pdf form download link আজকে আপনাদের সাথে আমি শেয়ার করছি।    এই E-passport pdf form টি  কম্পিউটারে বসে ফিলাপ করতে হবে৷ এর নিচে আপনি দেখতে পাবেন একটি বারকোড। এই barcode টি পরিবর্তন হতে থাকে যখন আপনি ফর্মে টাইপ করবেন৷ আপনি ফর্ম পুরণ করতে করতেই দেখবেন বারকোড টি পরিবর্তিত হচ্ছে।  গুরুত্বপূর্ণ তথ্য: ১। পিডিএফ ফর্মটি প্রথমে কম্পিউটারে ডাউনলোড করতে হবে (নিচের নীল রঙ্গের passport pdf file লিংকে পাবেন)  ২। সমস্ত প্রয়োজনীয় ফাংশন সমর্থন করতে "Adobe Acrobat Reader" টুলটি খুলুন এবং পূরণ করুন। Adobe.com এ Adobe Acrobat Reader বিনামূল্যে ডাউনলোড করার জন্য এই লিংকে যানঃ  https://acrobat.adobe.com/us/en/acrobat/pdf-reader.html  পুরো ফর্ম টা পূরণ হয়ে গেলে Save করবেন। Ctrl + S চাপলেই ফাইল সেইভ হয়ে যাবে। এরপর প্রিন্ট দিয়ে অন্য কাজ করবেন৷  passport pdf file এর ডাউনলোড লিংকঃ  আপনি এ

ই-পাসপোর্ট এর কালার কেমন হবে? ই-পাসপোর্ট কি রঙ্গের হবে?

ই-পাসপোর্ট এর কালার কেমন হবে? ই-পাসপোর্ট কি রঙ্গের হবে?   ই-পাসপোর্ট নিয়ে সেই ২০১৬ সাল থেকে নানান জল্পনা কল্পনা শেষে অবশেষে গত ২২ ই জানুয়ারি ২০২০ সাল থেকে ই-পাসপোর্ট  কার্যক্রম চালু হয়েছে।  আপনাদের অনেকের মনেই প্রশ্ন তৈরি হয়েছে ই-পাসপোর্ট নিয়ে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন ই-পাসপোর্ট দেখতে কেমন, এটা কি রঙের হবে, ইত্যাদি ইত্যাদি। আপনাদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে ই-পাসপোর্ট পুরাপুরি আগের পুরোনো মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের মতই হবে। লাল, বেগুনি ও সবুজ এই তিন রঙেরই ই-পাসপোর্ট মিলবে। শুধু পার্থক্য হল, ই-পাসপোর্ট এর মধ্যে মাইক্রোচিপে আপনার তথ্য গুলোও দিয়ে দেয় হবে।  এছাড়া ই-পাসপোর্টের বই একটা বড়টা নিতে পারবেন৷ আবেদনের প্রেক্ষিতে আপনি সর্বোচ্চ ৬৪ পৃষ্ঠার ই-পাসপোর্ট নিতে পারেন৷              

কোথায় ই-পাসপোর্ট আবেদন জমা দিব?

কোথায় ই-পাসপোর্ট আবেদন জমা দিব?  ই-পাসপোর্ট এর ফর্ম পুরণ করার পর তা কোথায় জমা দিবেন তা নিয়ে অনেকের অনেক ভুলভ্রান্তি রয়েছে। প্রাথকমিক ভাবে ই-পাসপোর্ট জমা নেয়া হচ্ছে উত্তরা আর পি ও, যাত্রাবাড়ী আর পি ও, আগারগাঁও আর পি ও৷    'আর পি ও' এর পূর্ণরূপ হচ্ছে রিজিওনাল পাসপোর্ট অফিস। অর্থাৎ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস। এই অফিস গুলো এলাকা ভিত্তিক, এখানে পাসপোর্ট এর জন্য আপনার ছবি তোলা, ফিংগার প্রিন্ট নেয়া ইত্যাদি কাজ হয়। উত্তরা দিয়াবাড়িতে ই-পাসপোর্ট অফিসে কি আবেদন জমা নেয়া হয়?     আপনারা সবাই যে একটা ভুল করছেন, সেটা হল ই-পাসপোর্ট এর আবেদন জমা দিতে "ই-পাসপোর্ট পার্সোনালাইজেশন কমপ্লেক্স" এ চলে যাচ্ছেন৷ এই ভবনে কোনো ই-পাসপোর্টের আবেদন জমা নেয়া হয় না। ই-পাসপোর্টের আবেদন জমা নেয়া হচ্ছে বর্তমানে উত্তরা, যাত্রাবাড়ী ও আগারগাঁও আর পি ও তে। দিয়াবাড়িতে ই-পাসপোর্টের আবেদন জমা নেয়া হয় না। ছবিতে দেখছেন ই-পাসপোর্ট পার্সোনালাইজেশন কমপ্লেক্স।  ই-পাসপোর্ট এর আবেদন ফর্ম জমা দিতে প্রতিদিন অনেক মানুষ এই ভবণে চলে আসছেন। যারাই আসছেন, তারা জানেন না এই ভবনটা আসলে কি কাজে ব্যবহার হচ্ছে। 

ই-পাসপোর্ট কিভাবে করব? ই-পাসপোর্ট করার ০৫টি সহজ ধাপ!

ই-পাসপোর্ট কিভাবে করব? ই-পাসপোর্ট করার ০৫টি সহজ ধাপ! সহজ ৫ টি ধাপেই ই-পাসপোর্ট করতে পারেন। ধাপ গুলি হলঃ ১। আপনার এলাকায় ই-পাসপোর্ট চালু হয়েছে কিনা দেখে নিন।  ২। অনলাইনে আবেদন ফর্ম পূরণ করুন। কোনো দালালের শরনাপন্ন হবেন না। ৩। নির্ধারিত ব্যাংকে আপনার পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করুন। ৪। আপনার ছবি ও বায়োমেট্রিক প্রদানের জন্য এপয়েন্টমেন্ট ডেইটে পাসপোর্ট অফিসে চলে যান। ৫। পাসপোর্ট তৈরি হলে তা সংগ্রহ করুন।  ধন্যবাদ। 

ই-পাসপোর্ট কবে পাওয়া যাবে? ই-পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইট কোনটি?

ই-পাসপোর্ট কবে পাওয়া যাবে?  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ই-পাসপোর্ট এর শুভ  উদ্ভোদন করেছেন গত ২২ ই জানুয়ারি ২০২০ ইং৷ এরপর থেকেই ই-পাসপোর্ট এর এনরোলমেন্ট শুরু হয়ে গিয়েছে৷ এখন আবেদন করলে ই-পাসপোর্ট পাওয়া যাবে৷   ই-পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইট কোনটি?  ই-পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইট  থেকে  আপনারা ই-পাসপোর্ট এর ফর্ম পুরোন করতে পারবেন৷ ই-পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইট টি হলঃ epassport.gov.bd