Skip to main content

Posts

Showing posts from August, 2022

আমার আব্বা আম্মা ভোটার আইডি কাড নামে ভুল আছে এখন passport করতে কোনো সমস্যা পড়ব কিনা?

 আমার আব্বা আম্মা ভোটার আইডি কাড নামে ভুল আছে এখন passport করতে কোনো সমস্যা পড়ব কিনা?  হ্যা আপনি সমস্যায় পড়বেন। আপনার বাবা মায়ের আইডি কার্ডে এক নাম আর আপনার পাসপোর্ট এ বাবা মায়ের নামের বানান বা নাম ভিন্ন হলে backend verification পাস করতে পারবেন না।  তাহলে কিভাবে epassport করবেন?  এ সমস্যা কোনো দালাল ধরে বা দরবেশ ধরে সমাধান করতে পারবেন না। আপনাকে নির্বাচন অফিসে গিয়ে যথোপযুক্ত প্রমান দাখিল করে আপনার বাবা মায়ের আইডি কার্ড সংশোধন করতে হবে প্রথমে।  এরপর আপনি পাসপোর্ট আবেদন করবেন আপনি আর কোনো সমস্যায় পড়বেন না। যদি আপনার MRP পাসপোর্ট থেকে থাকে আর সেখানে যদি আপনার বাবা মায়ের নাম ঠিক থাকে, তাহলে আপনি আবার NID ঠিক না করেও MRP passport থেকে ইপাসপোর্টে  কনভার্ট হতে পারেন। একে Conversion to epassport বলে। 

What is Pending for backend verification? Pending for backend verification বলতে কি বুঝায়?

What is Pending for backend verification? Pending for backend verification বলতে কি বুঝায়? Backend verification বলতে পাসপোর্ট অফিসে আপনার পাসপোর্ট আবেদনের পর আপনার তথ্য মেলানোর জন্য যে অনুসন্ধান করা হয়, তাকে বুঝানো হয়।  অর্থাৎ আপনি ধরেন একটি পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করলেন। পাসপোর্ট এর সয়ংক্রিয় সিস্টেম আপনার বায়োমেট্রিক তথা আপনার আঙ্গুলের ছাপ, ছবি, চোখের আইরিশ ইত্যাদি সব কিছু মিলিয়ে দেখবে যে এগুলো কি পাসপোর্ট এর সার্ভারে আগে থেকে রয়েছে কিনা।  যদি ধরেন আপনি একটি পাসপোর্ট থাকা সত্ত্বেও নতুন আরেকটি পাসপোর্ট নাম বা যেকোনো তথ্য পরিবর্তন করে আবেদন করে থাকেন, তাহলে backend verification এ আপনার পাসপোর্ট টা manual review এর জন্য পরে থাকবে। মেনুয়ালি চেক করে যদি আপনার তথ্যের কোনো গড়মিল না পাওয়া যায়, তাহলে আপনার পাসপোর্ট টি ছেড়ে দেয়া হবে এবং আপনি পরবর্তি ধাপ গুলো পাড় করে পাসপোর্ট টি হাতে পাবেন।  সয়ংক্রিয় ভাবে বেশিরভাগ বেকেন্ড ভেরিফিকেশন ছাড় পেয়ে যায়। কিন্তু যারা তথ্যের গোজামিল করেন, তারাই ধরা খেয়ে যান। অনেক ক্ষেত্রে ছোট খাটো পরিবর্তনেও বেকেন্ড ভেরিফিকেশনে আটকে যায় পাসপোর্ট। এগুলো backend verification

আমি একবার পাসপোর্ট করে তা হারিয়ে ফেলেছি। আবার নতুন পাসপোর্ট করতে পারব? অথবা কিভাবে পাসপোর্ট পেতে পারি?

আমি একবার পাসপোর্ট করে তা হারিয়ে ফেলেছি আবার নতুন পাসপোর্ট করতে পারব কি? অনেকেই এমন প্রশ্ন নিয়ে হাজির হয়ে থাকেন। গ্রুপে এবং পেইজে এমন অনেক প্রশ্ন পাওয়া যায় যে একজন ব্যক্তি একটি পাসপোর্ট করেছেন এরপর সেটি হারিয়ে ফেলেছেন। এখন কি তিনি ২য় বার পাসপোর্ট করতে পারবেন?  আসুন উত্তর জানা যাক।  পাসপোর্ট থাকা সত্ত্বেও নতুন পাসপোর্ট আবেদন করা যাবে কি? উত্তর হল না। আপনি একটি পাসপোর্ট করার পর আরেকটি পাসপোর্ট করতে পারবেন না। এটি আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। আপনি যদি মনে করেন কেউ বুঝবে না, তাহলে আপনি সম্পূর্ণ ভুল ভাবছেন। পাসপোর্ট এর ডেটাবেজে আপনার আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণ করা আছে। সেখান থেকে মিলিয়ে আপনাকে Backend verification এ পাসপোর্ট করা থেকে আটকিয়ে দেয়া হবে।  ফলে আপনি পাসপোর্ট আর পাবেন না। এরপর আপনাকে সারেন্ডার করতে হবে যে আপনি ভুল করেছেন। আপনি আপনার ভুল স্বীকার করলে তা যৌক্তিক বলে গ্রহণ হবে কিনা, এসব অনেক ঝামেলার বিষয়। সেদিকে অন্য একদিন যাবো।  আপাতত আজ যা বলছি, তার সব ই MRP passport বা epassport উভয়ের ক্ষেত্রেই একই। অর্থাৎ কোনো ব্যক্তিই এক এর অধিক MRP passport বা epassport করতে পারবেন না।  এবার আসা যাক আপনার পা

পাসপোর্টে স্পাউস অর্থাৎ স্বামী বা স্ত্রীর নাম দেওয়া না থাকে তাহলে কি করতে হবে?

যদি আপনার পাসপোর্টে স্পাউস অর্থাৎ স্বামী বা স্ত্রীর নাম দেওয়া না থাকে, তাহলে পরবর্তিতে পাসপোর্ট রিনিউ করা বা নতুন করে করার ক্ষেত্রে কি করবেন?  অনেকেই এমন প্রশ্ন করে থাকেন আমাদের আনঅফিশিয়াল ফেসবুক পেইজে।  আজকে এই প্রশ্নের উত্তর দিব।  তো আপনার যদি পাসপোর্ট থেকে থাকে যেখানে আপনার স্ত্রী বা স্বামীর নাম দেয়া নেই, অথবা আপনি যদি নতুন পাসপোর্ট করতে চান আপনার স্বামী বা স্ত্রীর নাম সংযুক্ত করে, তাহলে আপনাকে আপনার নিকাহনামা বা মেরিজ সার্টিফিকেট প্রদান করতে হবে।  নিকাহনামা বা মেরিজ সার্টিফিকেট সঙ্গে নিয়ে আসলেই নতুন পাসপোর্ট নেয়ার সময় অথবা পুরোনো পাসপোর্ট রিনিউ করার সময় আপনি আপনার স্বামী বা স্ত্রীর নাম পাসপোর্টে সংযোজন করতে পারবেন।  আরো পড়ুনঃ  কিভাবে পুলিশ রিপোর্ট ছাড়া e-passport পাওয়া যাবে?